Logo
শিরোনাম
মাদক কারবারির হাতে নিহত এএসআই পিয়ারুলের বাড়ীতে শোকের মাতম গাজীপুরের মেয়রকে আ.লীগ থেকে বহিষ্কারের দাবিতে তৃতীয় দিনে বোর্ডবাজার সহ মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি অর্জনে গাজীপুর মেয়রের আনন্দ মিছিল গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের গৌরবময় সেবার তৃতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বাসন থানা কর্তৃক কেক কেটে উদযাপন করেন। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ২৯ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম তরত পাড়া পাকা মসজিদ।  ঘোড়াশালে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের ৪ দফা দাবিতে মানববন্ধন ও ৪ মন্ত্রণালয়ে স্বারকলিপি প্রদান লড়াই করে জিতে আরও এগিয়ে বাংলাদেশ ছাড় দেওয়া বয়স মেনে চাকরির শূন্য পদ পূরণের নির্দেশ সাড়ে ১৬ কোটি টিকা কেনার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ২১২১ সহকারী শিক্ষকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা আবার শুরু। নগরীর ৩৪ নং ওয়ার্ড গাছা থানা আওয়ামী লীগ অঙ্গ সহযোগী সংগঠন উদ্যোগে ১৫ ই আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মিলাদ মাহফিল, দোয়া ও গনভোজ অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ গাজীপুর মহানগর শাখা কর্তৃক আয়োজিত ৪৬ তম জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা, দোয়া ও গনভোজের. দেশের ৪৬১টি উপজেলা শতভাগ বিদ্যুতায়িত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। খুনিদের জিয়া দেন চাকরি, খালেদা বানান এমপি: শেখ হাসিনা নিউ ডেভেলপোর্ট ব্যাংকার নতুন সদস্য বাংলাদেশ নিউ জিল্যান্ডের ব্যাটিংয়ে যোগ হচ্ছে অ্যালেনের ‘বারুদ’ ফিন অ্যালেন। নারীকর্মী রিমান্ড বিচারক ব্যাখা এবং দুই কোম্পানী আদালতে তলব বিদেশী পিস্টলাস প্রেরক গ্রপ্তার পঞ্জিশির ঘড়ি ফিলেচা তালেবান সাকিব জানালেন, উইকেট অস্ট্রেলিয়া সিরিজের হতে হতে পারে

শিশুদের অংশগ্রহণে আবাদ হোক মসজিদ

সুন্দর ও অপরাধমুক্ত সমাজ গঠনে শিশুদের মসজিদে গমন খুবই জরুরি। শিশুদের অনেকে মসজিদে আসতে চায়, কিন্তু অভিভাবক শিশুকে মসজিদ নিয়ে আসা থেকে বেঁচে থাকতে মিথ্যাসহ নানা অজুহাত দাঁড় করায়। যা কোনোভাবেই উচিত নয়, বরং শিশুর মসজিদে আসা এবং শিশুদের অংশগ্রহণে মসজিদ আবাদ হলে জাতি পাবে সুন্দর ও অপরাধমুক্ত সমাজ।

মসজিদে শিশুদের নিয়ে এলে অনেক মুসল্লিই বিরক্ত হয়। আবার অনেকে শিশুদের নামাজের কাতার থেকে বের পেছনে পাঠিয়ে দেয়। যা ঠিক নয় বরং সুন্নাতের সরাসরি বিরোধী।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর জীবন থেকেই মুসলিম উম্মাহর এ শিক্ষা নেয়া জরুরি যে, তিনি মসজিদে শিশুদের নিয়ে আসতেন কিনা। কিংবা নামাজ পড়াকালীন সময়ে তিনি শিশুদের সঙ্গে কেমন আচরণ করেছেন। আর তাতেই রয়েছে সুন্দর উত্তর।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর প্রিয় নাতি হজরত ইমাম হাসান ও হুসাইন নামাজ চলাকালীন সময়ে সেজদায় গেলে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর কাধে চড়তেন। যে কারণে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অনেক সময় সেজদায় অনেক সময় ব্যয় করতেন। কখনও নাতিদের সঙ্গে রাগ বা খারাপ আচরণ করেননি।

বাচ্চা বা শিশুদের মসজিদমুখী করতে দেশে ও দেশের বাইরে নানা আয়োজনের খবর পাওয়া যায়। কোথাও মসজিদে গাছের বাগান করেছেন কোনো ইমাম। এক একটি গাছের টবে এক একজন বাচ্চা বা শিশুর নাম লিখে সে গাছের তত্ত্বাবধান করার দায়িত্ব দিয়েছেন সেই শিশুকে। ফলে সে মসজিদে আসবে আবার কুরআন শিখবে পাশাপাশি হবে নিয়মিত নামাজি। তার থেকে খারাপ বা বদ স্বভাব দূর হয়ে যাবে।

আবার ভারতে গত কিছুদিন আগে একাধারে ৪০ দিন নামাজের জামাআতে অংশগ্রহণকারীদের জন্য নতুন সাইকেল উপহার দেয়ার আয়োজন হয়েছিল। কারণ যে বা যারা নিয়মিত ৪০ দিন মসজিদে নামাজের জামাআতে অংশগ্রহণ করবে তাদের মাঝে নামাজের একটা অভ্যাস তৈরি হয়ে যাবে। অন্যায় ও অপরাধমুক্ত মনও তৈরি হয়ে যাবে।

এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের নোয়াখালীর এক মসজিদের ইমাম জুমআর নামাজে ঘোষণা করলেন, ’১২ বছরের নিচে যত বাচ্চা মসজিদে আসবে প্রত্যেক ওয়াক্তে তাদের জন্য থাকবে ২টি করে চকলেট। আবার যারা নিয়মিত আসবে তাদের জন্য থাকবে সপ্তাহিক পুরস্কার। যা প্রতি বৃহস্পতিবার বাদ ইশা ঘোষণা করা হবে।’

বাচ্চাদের মসজিদমুখী করে নামাজি ও অপরাধমুক্ত সুন্দর জীবন গঠনে এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন এ ইমাম। যদিও ভেবেছিলাম হয়তো এ আহ্বানে তেমন সাড়া পাবো না।

আল্লাহর তাআলার শুকরিয়া, ইমামের এ ঘোষণায় এক সপ্তাহ, দুই সপ্তাহ যেতে না যেতেই মসজিদে শিশুদের সংখ্যা বাড়তে থাকে। সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি চকলেট (৫৮) পাওয়া ৮ বছরের শিশু সালেহকে সাপ্তাহিক পুরস্কার হিসেবে জ্যামিতি বক্স দিয়েছেন মসজিদে এ ইমাম।

বাচ্চাদের উদ্দেশ্যে মসজিদে ইমাম ঘোষণা দিয়েছিলেন, ‘শুধু নামাজ পড়ার জন্যই নয়, বরং মসজিদে নামাজ পড়ার পর তারা খেলবে, দৌড়াদৌড়ি করবে, আনন্দ করবে।’

ইমামের এ ঘোষণায় স্থানীয় কিছু মুসল্লি রেগে গেলেন আবার কেউ কেউ মারাত্মক বিরক্তি প্রকাশ করলেন। এ ব্যাপারে মসজিদের ইমামের ঘোষণা-

‘শিশুদের যারা সহ্য করতে পারবে না, তারা চাইলে অন্য মসজিদে চলে যেতে পারেন। আর যারা রেগে যাবেন তাদের নয়, যারা ধৈর্যশীল মুসল্লি, আমি শুধু তাদের ও শিশুদের ইমামতি করবো।’

কারণ শিশুরা ছোট থেকে নামাজে অভ্যস্ত হলে মসজিদ কখনো মুসল্লি শূন্য হবে না। যারা এখন শিশু, কম-বেশি দুষ্টুমি করলেও বড় হলে ঠিক হয়ে যাবে। তাদের বুঝানো এবং নামাজে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করাই বুদ্ধিমানের কাজ।

শুধু ছেলে শিশুরাই নয়, মেয়ে শিশুরাও বাবা-ভাইয়ের সঙ্গে মসজিদে আসা শুরু করে। এরই মধ্যে ৬ বছরের এক মেয়ে শিশু সবচেয়ে বেশি মসজিদে এসে চকলেটসহ সপ্তাহিক পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন অ্যালার্ম ঘড়ি।

দেশের প্রতিটি মসজিদে শিশুদের অংশগ্রহণ বাড়লে, শিশুদের দ্বারা মসজিদ আবাদ হলে কমে যাবে অপরাধ প্রবণতা। কুরআনের আলোয় আলোকিত হবে ব্যক্তি পরিবার সমাজ ও দেশ।

সে কারণে মসজিদে শিশুদের নিয়ে আসা অভিভাবক ও বড়দের নৈতিক ও ঈমানি দায়িত্ব। সে আলোকে মসজিদ চত্বরে শিশুদের জন্য বিনোদনমূলক পার্ক বা জায়গাসহ খেলার সামগ্রীর ব্যবস্থা রাখা যেতে পারে। যা শিশুদের নৈতিক, মানসিক ও আত্মিক শিক্ষার পাশাপাশি সত্য ও সুন্দরের দিকে পারিচালিত করবে।

আজকের শিশুই আগামী দিনের মসজিদের নামাজের জামাআতে সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে কাতারবন্দি হয়ে নামাজ আদায় করবে। সুন্দর, শান্তি ও নিরাপত্তার সুবাতাবাস বইবে সমাজ ও রাষ্ট্রে। আর তাদের পরকালও হবে সুন্দর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Design & Maintenance By Abu Bokkor Siddik